চান্দিনাজাতীয়

চান্দিনায় টমেটোর বাম্পার ফলন; দাম নিয়ে হতাশায় কৃষক

চান্দিনায় টমেটোর বাম্পার ফলন; দাম নিয়ে হতাশায় কৃষক

।।মো. আবদুল বাতেন।।

কুমিল্লার চান্দিনায় এবার টমেটোর বাম্পার ফলন হলেও দাম কমে যাওয়ায় হতাশ কৃষকরা। বিগত বছর এই সময়ের তুলনায় এবার টমেটোর দাম অনেক কম। আশানুরুপ দাম না পেয়ে মূলধন তুলতে পারবেন কিনা তা নিয়ে চিন্তিত তারা। এছাড়া অনেকেই উৎপাদন খরচ উঠাতে পারলেও তেমন লাভবান হবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। দাম কম পাওয়ায় চাষিদের মুখে এখন হাসি নেই।

এসব টমেটো সংরক্ষণে এ অঞ্চলে কোন হিমাগার না থাকায় বাধ্য হয়েই কম দামে টমেটো বিক্রি করছেন কৃষকরা। এ অঞ্চলে হিমাগার নির্মাণের দাবি জানান তারা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চান্দিনা উপজেলায় এবছর ৫শত ৯০ হেক্টর জমিতে টমেটো চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিলো। তবে ৬শত ৪০ হেক্টর জমিতে টমেটো চাষ করা হয়েছে। বিগত বছরে লাভজনক হওয়ায় ৫০ হেক্টর জমিতে টমেটো চাষ বেড়েছে। এই উপজেলায় উন্নতমানের বিএল ৬৪২, বাহুবলী, অলক ও চিরঞ্জীব জাতের টমেটো চাষ করে ভালো ফলন পাচ্ছেন তারা। এছাড়া চলতি মৌসুমে অনুকূল আবহাওয়ার কারণে এবং কোন প্রকার প্রাকৃতিক দুর্যোগ না থাকায় টমেটোর বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রতি হেক্টরে গড়ে ৪০ টন টমেটো উৎপাদন হয়েছে।

এখানকার টমেটো সুস্বাদু হওয়ায় বাজারে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। যা জেলাবাসীর চাহিদা মিটিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ অন্যান্য জেলায়ও যাচ্ছে এখন। এই উপজেলায় প্রতি বছর কোটি টাকার টমেটো উৎপাদন হলেও হিমাগার না থাকায় ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন কৃষকরা।

সরেজমিনে চান্দিনা উপজেলার চিলোড়া, জয়দেবপুর, ডুমুরিয়া, বরকরই, মাইজখার, মাধাইয়া, আওড়াল গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ জুড়ে টমেটো চাষ হয়েছে। লাল-সবুজে ছেয়ে গেছে মাঠ। গাছে গাছে টমেটোর ফুল আর থোকায় থোকায় ঝুলছে টমেটো। কাঁচা ও আধা-পাকা টমেটোর মাঝে এখন পাকতেও শুরু টমেটো। কেউ বাগানের যত্ম নিচ্ছেন কেউবা রোগ বালাই প্রতিরোধে ছিটাচ্ছেন কীটনাশক আবার কেউ টমেটো বাজারজাত প্রক্রিয়ায় ব্যাস্ত সময় পার করছেন।

জয়দেবপুর গ্রামের কৃষক মো. জহিরুল ইসলাম জানান, গত কয়েক বছর ধরে এ অঞ্চলে টমেটোর ভালো ফলন হয়। কিন্তু আশানুরুপ দাম পাচ্ছি না। লোকসান গুনতে হবে এবছরও। ৪৪ শতক জমিতে টমেটো চাষে খরচ হয় ৮০ হাজার টাকা। ভালো ফলন হলেও দাম কম তাই পুঁজি আসবে না লোকসান হবে। বর্তমানে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৬-৭ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এসব টমেটো সংরক্ষণে কোন হিমাগার নেই। হিমাগার থাকলে সংরক্ষণ করে বিক্রি করলো আরো বেশী লাভবান হওয়া যেতো।

এব্যাপারে চান্দিনার উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মো. মাজেদুল ইসলাম জানান, আবহাওয়ার কারণে এবার আগাম টমেটো চাষ করা সম্ভব হয়নি। প্রায় সব কৃষকরাই মৌসুমের একই সময়ে টমেটো চাষ করেছে। এতে ফলনও একই সময়ে এসেছে। এজন্য এবছর টমোটোর দাম কিছুটা কম।

এব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা কৃষি অফিসার মোছা. আফরিনা আক্তার জানান, এবছর অনুকূল আবহাওয়া থাকায় সকল প্রকার সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। এছাড়া গরমের কারণে টমোটো একই সময়ে পেকেছে। ফলে চাহিদার অতিরিক্ত টমেটো বাজারে আসছে। এজন্যই দাম কমেগেছে।

Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker