জাতীয়

চাঁদপুর মেঘনার ঘূর্ণি স্রোতে খাদ্যপণ্য ভর্তি ট্রলার ডুবি

৩১ জনের লাশ উদ্ধার

চাঁদপুর মেঘনার ঘূর্ণি স্রোতে খাদ্যপণ্য ভর্তি ট্রলার ডুবি

চাঁদপুর মেঘনায় ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে প্রায় ২৪ লক্ষ টাকার খাদ্য পণ্য নিয়ে একটি ট্রলার ডুবে গেছে। এই ঘটনায় অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন টলার আরোহী ১৫ যাত্রী। ২৮ জুন রোববার দুপুর আড়াইটার সময় পুরাণবাজার ঠোট্টা এলাকায় এই নৌ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

 

নৌ পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পুরাণবাজার দেওয়ান ঘাট থেকে জনৈক অলি মাঝির ট্রলার শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া আত্রা বাজার ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী নিয়ে মেঘনা পাড়ি দিচ্ছিল। পুরাণবাজার ঠোট্টা অতিক্রমকালে হঠাৎ তীব্র ঢেউ ও ঘূর্ণিস্রোতের তোড়ে ট্রলারটি তলিয়ে যায়।

 

এসময় ট্রলারে থাকা মাঝিমাল্লা ও ব্যবসায়ীরা নদীতে পড়ে যায় এবং স্রোতের সাথে ভাসতে ভাসতে হরিসভা পশ্চিম শ্রীরামদী এলাকার দিকে চলে যায়। টলার ডুবির খবর পেয়ে আশপাশের ঘাট থেকে খালি ট্রলার নিয়ে লোকজন ছুটে গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে। এসময় ভাসমান কিছু খাদ্যপণ্য ও তেলের ড্রাম উদ্ধার করা হয়।

 

নিমজ্জিত ট্রলার মাঝি অলি মাঝি (৪৮) জানান, চরআত্রা বাজার ব্যবসায়ীদের খরিদ করা বিভিন্ন খাদ্যপণ্য নিয়ে যাবার সময় তার ট্রলারটি স্রোত ও দেওর কবলে পড়ে ডুবে গেছে। টলারে রাইস থেকে ২৪ লক্ষ টাকার খাদ্যপণ্য ছিল সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চরআত্রা বাজারের আফজাল জানশরীফ দিদার এ তিনজনের খাদ্যপণ্য ছিল বেশি।

 

এদিকে স্থানীয়রা জানান, এবার বর্ষা মৌসুমে এটাই ঘূর্ণি স্রোতের স্থলে প্রথম নৌ দুর্ঘটনা। প্রতি বছর বর্ষা এলে চাঁদপুর মোলহেড এলাকার পদ্মা-মেঘনা-ডাকাতিয়া এ তিন নদীর মিলন স্থানটি ভয়ঙ্কর ও বিপদজনক এলাকা হিসেবে পরিণত হয়। যা নৌ চলাচলের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।

Close
Close